Thursday, June 06, 2013

বোকাদের পদ্য ০৬৭

আমার শেষ বিকেলের গান
তুমি এক পা ভাঙা চড়ুই আমার মধ্যরাতের মদ
আমার চলতে পথে হঠাৎ ঝিলিক রোদ
রাতে শিয়র ঘেঁষে বৃষ্টি করাঘাত
আমার শুন্য ঝোলায় হঠাৎ পুঁতির মালা
তুমি একলা সাঁঝে নিবিড় হয়ে বাজো
তোমায় কেউ শোনে না একলা আমি ছাড়া
তুমি বেভুল চরণ ভুল খেয়ালের সুর
তোমায় যেমন খুশি তেমন লয়ে গাই
আমার সন্ধ্যাভাঙা প্রথম অন্ধকার
আমার শেষ বিকেলের পথ ভোলানো গান
তুমি
অচেনা পথ
সুড়কি ভাঙা সিঁড়ি
তুমি ঘর না ফেরার আচমকা আহ্বান।

Friday, March 15, 2013

বোকাদের পদ্য ০৬৮

হঠাৎ ঝড়ে জাহাজ ভোলে দিক
আকাশ মোছে তারার হাতের ছাপ
সাগর ফোঁসে গোখরো সাপের ছাও
ঢেউয়ের মেয়ে খলখলিয়ে হাসে
নাবিক তুমি একলা কোথায় যাও?

অমোঘ টানে অতল পানে সব
ডুবতে থাকে, মাতৃভাষায় ঝড়
সান্ত্বনা দেয়, জলের তলে নাও
যখন শেষে হারায় পরিচয়
আকাশ শুধায়, নাবিক কোথায় যাও?

হাঁচড়পাঁচড় ঐ যে প্রবাল দ্বীপ
একটু সবুজ, একটু রোদের গাছ
একলা দিনের হঠাৎ টেলিগ্রাম
ঐ দ্বীপে যাই, ওটাই আমার ঘর
ইয়োহোহোহো বটলভরা রাম

সাগর তবু ফুল্ল মুখে ঘোরে
ঠিক জানে সে নাবিক বেলা শেষে
ভাসবে। হাওয়ায় প্রতীক্ষা শনশন
সাগর ঘোরে ডাঙর হাঙর হয়ে 
দ্বীপের আমি একলা রবিনসন

কে খোঁজে ঐ আকাশে উত্তর
বালির বুকে কম্পাসও দেয় ঘুম
সাগর জপে নিজের মনষ্কাম
নাবিক ভাসাই বোতল তারই জলে
ভেতরচিঠির ওপর তোমার নাম।